তারিখ : ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পেলো অত্যাধুনিক এ্যাম্বুলেন্স

অবশেষে অত্যাধুনিক মানের এ্যাম্বুলেন্স পেলো রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
[ভালুকা ডট কম : ১৮ জানুয়ারী]
অবশেষে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পেলো অত্যাধুনিক মানের একটি নতুন এ্যাম্বুলেন্স। সম্প্রতি ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ জেলার অপর ৩টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধানদের হাতে অত্যাধুনিক মানের এই নতুন এ্যাম্বুলেন্সের চাবি হস্তান্তর করা হয়।

সূত্রে জানা গেছে, আশির দশকে রাণীনগর উপজেলার কয়েক লাখ মানুষের দ্বোরগড়ায় মানসম্মত চিকিৎসা সেবা পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে উপজেলা সদরের অনুক’লে স্থাপন করা হয় ৩১শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। প্রথম থেকেই হাসপাতালটি ছিলো নানা সমস্যায় জর্জড়িত। এরপর ২০১২সালে স্থানীয় সংসদ সদস্যের প্রচেষ্টায় তা ৫০শয্যার একটি আধুনিক মানের হাসপাতালে উন্নিত করা হয়। কিন্তু জনবল সংকটের কারণে এখনো কর্তৃপক্ষ ৫০শয্যা হিসেবে হাসপাতালটি চালু করতে পারেন নাই। গত বছর পর্যন্ত এই হাসপাতালে ছিলো মাত্র ৩জন ডাক্তার। কিন্তু চলতি মাসে নতুন করে হাসপাতালে ৯জন ডাক্তার যোগদান করায় বৃদ্ধি পেয়েছে চিকিৎসা সেবার মান। আর কোন রোগীকে হাসপাতালে এসে ডাক্তারের অভাবে চিকিৎসা না নিয়ে ফিরে যেতে হয় না।

বর্তমানে হাসপাতালে আগের চেয়ে এখন দ্বিগুন সংখ্যক রোগীরা মানসম্মত চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছেন। এছাড়াও হাসপাতালে ছিলো না আধুনিক মানের কোন এ্যাম্বুলেন্স। শুরু থেকেই যে দুটি নিন্মমানের এ্যাম্বুলেন্স ছিলো সেগুলো পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে বছরে পর বছর। বেশ কয়েকবছর আগে যে একটি লক্করজক্কর এ্যাম্বুলেন্স প্রদান করা হয় তাতে কোন রোগী চলাচল করলে সেই রোগী আরোও বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়তো। অবশেষে সম্প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের অধিনে কমিউনিটি বেইজড হেলথ কেয়ার অপারেশনাল প্লানের আওতায় রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একটি অত্যাধুনিক মানের একটি এ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর করা হয়েছে।

চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ডা: জাহিদ মালেক এমপি, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের সচিব আসাদুল ইসলাম, ডিজি প্রফেসর ডা: আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ। এতে করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও উপজেলাবাসীর দীর্ঘদিনের একটি স্বপ্ন পূরন হলো।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: কেএইচএম ইফতেখারুল ইসলাম খাঁন (অংকুর) বলেন অনেক চেষ্টার পর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় হাসপাতাল একটি অত্যাধুনিক মানের এ্যাম্বুলেন্স পেলো। বর্তমান সরকারের আমলে দীর্ঘসময় পর এই হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স সমস্যাটি সমাধান করা হলো। এখন কোন জরুরী রোগীকে বেশি টাকায় বাহির থেকে এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করতে হবে না। বর্তমানে হাসপাতালে যে দুটি এ্যাম্বুলেন্স রয়েছে সেগুলো দিয়ে যে কোন জরুরী রোগীকে দেশের যে কোন বড় হাসপাতালে দ্রুত সময়ে রেফার্ড করা সম্ভব হবে। এতে করে সরকারি হাসপাতালের প্রতি সাধারন মানুষের আস্থা কয়েকগুন বেড়ে যাবে এবং বৃদ্ধি পাবে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার মানও।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৩১ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই