তারিখ : ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

বিচারবহির্ভূত হত্যার তদন্ত করতে ব্যর্থ বাংলাদেশ-অ্যামনেস্টি

বিচারবহির্ভূত হত্যার তদন্ত করতে ব্যর্থ বাংলাদেশ-অ্যামনেস্টি
[ভালুকা ডট কম : ০৫ নভেম্বর]
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সদ্য প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে  উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশে মাদকবিরোধী অভিযানের নামে ২০১৮ সালে অন্তত ৪৬৬ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে বিচারবহির্ভূত হত্যার শিকার হয়েছেন। এ সংখ্যা পূর্ববর্তী বছরের চেয়ে তিনগুণেরও বেশি।

'ক্রসফায়ারে হত্যা: মাদকবিরোধী যুদ্ধের নামে বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যার অভিযোগ’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে সন্দেহভাজনদের ‘গুম’ করা এবং নিহতদের বিরুদ্ধে ‘ভুয়া প্রমাণ তৈরির’ও অভিযোগ আনা হয়েছে।

সোমবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে অ্যামনেস্টি বলেছে, কথিত বন্দুকযুদ্ধে মৃত্যুর এসব ঘটনার তদন্ত করতে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ যে ব্যর্থ হয়েছে, তাও উঠে এসেছে তাদের এই প্রতিবেদনে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কথিত বন্দুকযুদ্ধে ঘটনাগুলো নিয়ে সাধারণের মধ্যে সবসময়ই সন্দেহ রয়েছে। আর মানবাধিকার সংগঠনগুলো এসব ঘটনাকে বিচারবহির্ভূত হত্যা হিসেবেই বর্ণনা করে আসছে।

এ প্রসঙ্গে মানবাধিকার সংগঠন অধিকার-এর পরিচালক নাসিরুদ্দিন এলান বলেন, বিচাবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা অনেকদিন ধরেই চলছৈ। এ নিয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনাকেও তোয়াক্কা করা হচ্ছে না। এর ফলে দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চালু হয়েছে এবং সেটার অন্যতম কারণ, অইন-প্রয়োগকারী সংস্থার সস্যদের দায়মুক্তি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতবছর মে মাসে এক অনুষ্ঠানে জঙ্গি দমনের মত ‘মাদক ব্যবসায়ী’ দমনে ‘বিশেষ অভিযান’ শুরুর কথা জানান। ওই অভিযান সফল করতে সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা নিয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল পরে বলেন, মাদক নিয়ন্ত্রণ না হওয়া পর্যন্ত এই ‘যুদ্ধ’ চলবে। শুরুতে র‍্যাব এই অভিযানে থাকলেও পরে গোয়েন্দা পুলিশ, রেল পুলিশ, থানা পুলিশ এবং বিজিবিকেও মাদকবিরোধী অভিযানে যুক্ত হতে দেখা যায়।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের উপ-পরিচালক দিনুশিকা দিশানায়েক বলেছেন,এই ‘মাদকবিরোধী যুদ্ধে’ প্রতিদিন গড়ে অন্তত একজনের প্রাণ গেছে। বিশেষ করে যেসব ঘটনায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়নের সংশ্লিষ্টতা ছিল, তারা আইনের তোয়াক্কা করেনি। সন্দেহভাজনদের গ্রেফতার করা হয়নি, বিচার তো নয়ই। কাউকে কাউকে বাড়ি থেকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পরে স্বাজনরা তাদের বুলেটবিদ্ধ লাশ দেখেছেন মর্গে।

এসব ঘটনা তদন্তের উদ্যোগ না নিয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের ‘বন্দুকযুদ্ধ’ বা ‘ক্রসফায়ারের’ দাবির পক্ষে ‘ভুয়া প্রমাণ’ তৈরির নির্দেশ দিয়েছে বলে অভিযোগ এসেছে অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে। পুলিশ যাদের ওইসব ঘটনার ‘প্রত্যক্ষদর্শী’ বলেছে, এরকম কয়েকজন অ্যামনেস্টিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, তারা নিজে চোখে ঘটনা দেখেননি। কিন্তু পুলিশ তাদের ‘প্রত্যক্ষদর্শী’ হিসেবে তাদের ‘বন্দুকযুদ্ধ’ বা ‘ক্রসফায়ারের’ দাবির পক্ষে বিবৃতি দিতে বলেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যে ঘটনাগুলো নিয়ে অ্যামনেস্টি অনুসন্ধান চালিয়েছে, তার প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভিকটিমকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কখনও একদিন, কখনও দেড় মাস পর তাদের লাশ পাওয়া গেছে। একটি ঘটনায় একজন ভিকটিমের মুক্তির জন্য পুলিশকে ঘুষ দেওয়ার কথাও অ্যামনেস্টিকে বলেছে, তার পরিবার। কিন্তু তাকে বাঁচানো যায়নি।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২২ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই