তারিখ : ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মামলা দায়েরের পরেও সুবিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত গৃহবধূ

মামলা দায়েরের আটদিন পরেও পুলিশ ধর্ষণ চেষ্টার আসামীদের আটক করতে না পারায় সুবিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত ভুক্তভোগী গৃহবধূ
[ভালুকা ডট কম : ১০ মে]
নওগাঁর রাণীনগরে রাতের আঁধারে এক প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষন চেষ্টার ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের আট দিন পার হলেও এখনও কোন আসামীকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এতে করে সুবিচার পাওয়া নিয়ে চরম আতঙ্কে রয়েছে ভুক্তভোগী ও তার পরিবার।

উপজেলার করজগ্রাম দোগাছী পাড়ার মৃত-কাশেম শেখের ছেলে প্রবাসী জনৈক ব্যক্তির স্ত্রী ভুক্তভোগী লায়লা বানু (ছদ্ম নাম) বলেন, দীর্ঘদিন যাবত একই গ্রামের হিন্দুপাড়ার হারান সরকারের ছেলে দুই সন্তানের জনক বিষু সরকার আমাকে কুপ্রস্তাব এবং নানা ভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। গত ৩০ এপ্রিল মঙ্গলবার দিবাগত রাত অনুমান ৯টার সময় গৃহবধূর ছেলে প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দেওয়ার জন্য ঘরের বাহিরে গেলে পূর্ব থেকে ওত পেতে থাকা বিষু সবার অজান্তে চুপ করে গৃহবধূর শোবার ঘরে প্রবেশ করে। পরে ছেলে ও মেয়ে মাটির বাড়ির দোতলায় পড়ালেখার জন্য উঠে গেলে বিষু অতর্কিত ভাবে গৃহবধূ মুখ ও দুই হাত চেপে ধরে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এসময় গৃহবধূ তাকে কৌশলে ঘরের বাহিরে এসে দরজা বন্ধ করে চিৎকার করলে আশেপাশের মানুষ ও গ্রামের কতিপয় মাতব্বররা এসে সকালে বিচার হবে বলে তাকে ছেড়ে দেয়।

সুবিচার পাওয়ার আশায় বিষয়টি গৃহবধূ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে জানায়। আজ-কাল বিচার হবে বলে চেয়ারম্যান ও মাতব্বররা কালক্ষেপন করেন। চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে স্থানীয় ইউপি সদস্য গফুর, গ্রামের কতিপয় মাতব্বর নুরুল ইসলাম, জাহাঙ্গির, হেলাল, জব্বারসহ আরো অনেকেই বিষয়টি রফাদফা করার নামে বিষুর পরিবারের কাছ থেকে প্রায় দেড় লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। গ্রাম্য মাতব্বর ও চেয়ারম্যানের কাছে সুবিচার না পাওয়ায় আমি গত শুক্রবার (৩মে) ধর্ষনে চেষ্টাকারী বিষুকে প্রধান আসামী করে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ আটজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেছি। যার মামলা নং ০২। এদিকে মামলা দায়ের আট দিন পার হলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে আটক করতে পারেনি অথচ প্রধান আসামী বিষু ছাড়া বাকি আসামীরা বীরদর্পে এলাকায় প্রকাশ্যে বিচরন করছে। তারা আমাকে বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদান করছে। তারা বলছে মামলা করে আমাদের কি করতে পারবি। পুলিশ আমাদের আটক করবে না। আমি এখন কোথায় গেলে সম্ভবহানীর সুবিচার পাবো। এমতাবস্থায় ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।

রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসএম সিদ্দিকুর রহমান বলেন ভুক্তভোগী ধর্ষনে চেষ্টাকারী বিষুকে প্রধান আসামী ও গ্রামের কতিপয় মাতব্বরদের নামে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। প্রধান আসামীকে আটক করা আমার মূল লক্ষ্য। কারণ প্রধান আসামীকে আটক করলে ঘটনার মূল কাহিনী জানা যাবে। তবে প্রধান আসামী বিষুকে আটক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৭৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই